মনোনয়ন লড়াইয়ে দেবর–ভাবি

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নারায়ণগঞ্জ-৫ (সদর-বন্দর) আসনে বর্তমান সাংসদ সেলিম ওসমান এবং তাঁর বড় ভাই প্রয়াত সাংসদ নাসিম ওসমানের স্ত্রী পারভীন ওসমান জাতীয় পার্টি থেকে মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন। জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট থেকে এই আসনে প্রার্থী হচ্ছেন সাবেক সাংসদ এস এম আকরাম।

 

 

 

• সেলিম ওসমান ও পারভীন ওসমান ফরম সংগ্রহ করেছেন
• ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী হচ্ছেন সাবেক সাংসদ এস এম আকরাম
• আ.লীগে মনোনয়নপ্রত্যাশী ১০ জন, বিএনপির ৩ জন

 

এই আসনে প্রার্থী হতে আওয়ামী লীগ ও এর সহযোগী সংগঠনের ১০ জন দলীয় মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন। বিএনপির দলীয় মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন সাবেক সাংসদ আবুল কালামসহ ৩ জন।

পারভীন ওসমান গতকাল মঙ্গলবার বলেন, তাঁর পক্ষে দলের নেতা–কর্মীরা দলীয় মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন। এর আগে সাংসদ সেলিম ওসমান দলীয় মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেন।

এ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশায় দলীয় মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আবদুল কাদির, আরজু রহমান, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবু হাসনাত মোহাম্মদ শহীদ বাদল, জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সুফিয়ান, মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক খোকন সাহা, সাংগঠনিক সম্পাদক মাহমুদা মালাল, জি এম আরাফাত, আনিসুর রহমান দিপু, মহানগর যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক আহম্মেদ আলী রেজা উজ্জ্বল ও জাতীয় শ্রমিক লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি শুক্কুর মাহমুদ।

নাগরিক ঐক্যের উপদেষ্টা সাবেক সাংসদ এস এম আকরাম জেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক ছিলেন। ২০১১ সালে তিনি আওয়ামী লীগ থেকে পদত্যাগ করেন। স্বচ্ছ ভাবমূর্তির রাজনীতির কারণে তিনি নারায়ণগঞ্জে সুপরিচিত।

এ আসনে বিএনপি থেকে মহানগর বিএনপির সভাপতি সাবেক সাংসদ আবুল কালাম, মহানগর যুবদলের সভাপতি ও নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের ১৩ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর খোরশেদ আলম খন্দকার, সুলতান মাহমুদ দলীয় মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন।

পারভীন ওসমান  বলেন, ‘আমার দলের নেতা–কর্মীরা চান আমি নির্বাচন করি। আমার পক্ষে দলের নেতা–কর্মীরা মঙ্গলবার মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন। দল থেকে মনোনয়ন দেওয়া হলে আমি জয়ের ব্যাপারে শতভাগ আশাবাদী। যাঁরা নাসিম ওসমানকে ভালোবাসেন তাঁরাই আমার কর্মী। তাঁরা আমাকে চান।’

এস এম আকরাম  বলেন, ‘আমি জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট থেকে মনোনয়ন পেলে নারায়ণগঞ্জ-৫ আসন থেকে নির্বাচন করব। জোটের মধ্যে আলাপ-আলোচনা হচ্ছে জোটের অংশীদারেরা কে কয়টা আসন পাবে। অবাধ, সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ নির্বাচন হলে এবং জনগণ ভোট দেওয়ার সুযোগ পেলে আমি নির্বাচনে জয়ের ব্যাপারে আশাবাদী।’

জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সুফিয়ান বলেন, তিনি দলীয় মনোনয়ন ফরম নিয়েছেন। জননেত্রী শেখ হাসিনা এবং আওয়ামী লীগের মনোনয়ন বোর্ড সিদ্ধান্ত নেবে কাকে মনোনয়ন দেওয়া হবে। তবে দল যদি তাঁকে মনোনয়ন দেয়, তাহলে তিনি জয়ের ব্যাপারে শতভাগ আশাবাদী।