অপপ্রচার ঠেকাতে ‘কন্টেন্ট ফিল্টারিং’ হবে: জব্বার

সোশাল মিডিয়ায় অপপ্রচার ঠেকাতে ‘কন্টেন্ট ফিল্টারিং’ এর একটি প্রকল্পের কাজ শুরু হয়েছে বলে জানিয়েছেন ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্য প্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার।

তিনি বলেছেন, কোনো পরিস্থিতিতে রাষ্ট্রীয় বা জনগণের নিরাপত্তা বিঘ্নিত হলে ইন্টারনেট বন্ধের মত পদেক্ষেপও সরকার নিতে পারে।

“আমাকে বৃহত্তর স্বার্থে ক্ষুদ্রতম সেক্রিফাইস করতেই হবে।এটি খুব সংগত কারণেই করতে হবে। রাষ্ট্র বাঁচাব না ফেইসবুক বাঁচাব? আমাকে অবশ্যই রাষ্ট্র বাঁচাতে হবে।”

সোমবার ঢাকার র্যাডিসন ব্লু ওয়াটার গার্ডেন হোটেলে ‘আইটিইউ বিটিআরসি এশিয়া-প্যাসিফিক রেগুলেটরস রাউন্ডটেবিল-২০১৮’ এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নে এ কথা বলেন মন্ত্রী।

নিরাপদ সড়কের দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ওপর হামলায় মৃত্যুর গুজব ফেইসবুকে ছড়িয়ে পড়া প্রসঙ্গে এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, “ফেইসবুকে আমাদের ফিল্টারিংয়ের কোনো ব্যবস্থা নেই। ফেইসবুক তার নিজের আমেরিকান আইন অনুযায়ী কমিউনিটি স্ট্যান্ডার্ড মেনে চলে।”

 

কোনো কন্টেন্ট বাদ দেওয়া বা অন্য বিষয়ে ফেইসবুককে শুধু অনুরোধ করা যায় জানিয়ে মোস্তাফা জব্বার বলেন, “আমরা কেবল ফেইসবুককে অনুরোধ করতে পারি। ফেইসবুক তার স্ট্যান্ডার্ড অনুযায়ী নিজেদের কাজগুলো করে থাকে। এখন ফেইসবুকের সাথে ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ আছে। ফেইসবুক আমাদের সব কথা শোনে না, কিন্তু কিছু কথা শোনে।”

এ কারণে টেলিকম বিভাগের মাধ্যমে একটি প্রকল্প বাস্তবায়নের কথা জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, “প্রকল্পটি ডিজিটাল নিরাপত্তা বিষয়ক। আমরা প্রত্যাশা করি এ প্রকল্প যদি শেষ করতে পারি তখন সম্পূর্ণভাবে আমরা আমাদের কন্টেন্ট ফিল্টারিং অথবা যে ধরনের বিষয়গুলো যাচাই-বাছাই করা দরকার সেগুলো করতে সক্ষম হব।”

এশিয়া প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলসহ আন্তর্জাতিক টেলিযোগাযোগ ইউনিয়নের বিভিন্ন দেশের নিয়ন্ত্রক সংস্থার প্রধান, অপারেটর ও টেলিকম প্রতিনিধি এবং আইসিটি বিশেষজ্ঞ মিলিয়ে প্রায় ১৩০ জন প্রতিনিধি এ সম্মেলনে অংশ নিচ্ছেন।