ধানমণ্ডিতে শিক্ষার্থীদের উপর হামলা, সাংবাদিককে মারধর

শুক্রবার বিকাল ৫টার দিকে ধানমণ্ডির বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় ইউল্যাব ক্যাম্পাসের সামনে মানববন্ধন চলাকালে এ ঘটনা ঘটেছে বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন।

ইউল্যাবের সামনে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের উপর ‘যুবলীগ ও ছাত্রলীগের সন্ত্রাসী বাহিনী’ হামলা করেছে বলে ছাত্র ইউনিয়ন অভিযোগ করেছে।

হামলার ঘটনার ছবি মোবাইল ফোনে ধারণ করতে গেলে নিউজ পোর্টাল প্রিয় ডটকমের প্রতিবেদক প্রদীপ দাসকে বেধড়ক পিটিয়েছে ওই যুবকরা।

প্রিয় ডটকমের বার্তা প্রধান রফিকুল রঞ্জু বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “ইউল্যাবের আন্দোলনকারী কয়েক তরুণকে বেশকিছু যুবক পেটাচ্ছিল। সেটা দেখে পাশে থাকা প্রতিবেদক প্রদীপ দাস এগিয়ে যান। কাছাকাছি গিয়ে পকেট থেকে ফোন বের করতেই তার ওপরও হামলা শুরু হয়। ফোন আছড়ে ভেঙে ফেলে। কিছুটা দূরে ফিসের সীমানা প্রাচীরের ভেতরে আমি ও আরেক প্রতিবেদক জনি রায়হান ছিলাম। আমরা এগিয়ে যাই।

“ভিডিওটাতে আমাদের রিপোর্টারকে পেটাচ্ছে, আর আমি গেটটার ওপাশে। বলছিলাম, ভাই পেটাবেন না…। পরে আমার দিকেও তেড়ে যায়… দেয়াল টপকে ধাওয়া দেয়। আমি ও সঙ্গে যারা ছিলেন তারা অফিসের ভেতরে ঢুকে যাই। ওরা অফিসের কিছু কাঁচ ভাঙচুর করে চলে যায়।”

এ ঘটনায় পেটে ও বুকে গুরুতর আঘাত পাওয়া প্রদীপকে ধানমণ্ডির ইবনে সিনা হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে বলে তিনি জানান।

হামলার ঘটনায় ধানমণ্ডি থানায় ফোন দেওয়া হলেও পুলিশের পক্ষ থেকে কোনো সাড়া মেলেনি বলে প্রিয় ডটকমের প্রধান প্রতিবেদক শফিউল আলম রাজা অভিযোগ করেছেন।

এ বিষয়ে ধানমণ্ডি থানার ওসি আব্দুল লতিফ বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “বিষয়টি আমরা শুনেছি। আমরা ব্যবস্থা নিচ্ছি।”

শুক্রবার বিকালে রাজধানীর শাহবাগে জাতীয় জাদুঘরের সামনে ছাত্র ইউনিয়নের সংহতি সমাবেশ থেকে অভিযোগ করা হয়, ইউল্যাবের সামনে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের উপর ‘যুবলীগ ও ছাত্রলীগের সন্ত্রাসী বাহিনী’ হামলা করেছে।

এঘটনায় ছাত্র ইউনিয়নের ধানমন্ডি-কলাবাগান থানা শাখার সাধারণ সম্পাদক সাদাত মাহমুদ ও সহ-সাধারণ সম্পাদক ফয়সাল আহমেদসহ ১০ জন গুরুতর আহত হয়েছেন বলে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে।